রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪৪ অপরাহ্ন

রাবিতে ছাত্রী অপহরণের ঘটনায় উপাচার্যের বাসভবনের সামনে বিক্ষোভ

রাবিতে ছাত্রী অপহরণের ঘটনায় উপাচার্যের বাসভবনের সামনে বিক্ষোভ

রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা হলের সামনে থেকে শুক্রবার সকালে বাংলা বিভাগের স্নাতক (সম্মান) চূড়ান্ত বর্ষের এক শিক্ষার্থীকে অপহরণ করা হয়। চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার জন্য সকাল ৮টার দিকে হল থেকে বের হয় ওই ছাত্রী। বঙ্গমাতা হলের সামনে পৌঁছুলে তিন যুবক তার পথরোধ করে। এ সময় তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তাকে জোরপূর্বক একটি প্রাইভেট কারে উঠিয়ে নিয়ে যায় তারা। সে তাপসী রাবেয়া হলের আবাসিক শিক্ষার্থী। তার বাড়ি নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর উপজেলার মাতাজি এলাকায়। অপহরণের ঘটনায় উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। শুক্রবার বিকাল ৪টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন আবাসিক ছাত্রী হলের শিক্ষার্থী সহপাঠিরা উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করে। বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা বলেন, আমাদের চোখের সামনে আমাদের সহপাঠিকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার স্বামীর সাথে তালাক হয়েছে। আইনত তালাক কার্যকর না হলেও তাকে কেউ এভাবে নিয়ে যেতে পারেনা। এভাবে হলের সামনে একটা মেয়েকে তুলে নিয়ে গেল। ক্যাম্পাসে আমাদের নিরাপত্তা কোথায়? আজ তাকে নিয়ে গেছে কাল অন্য কাউকে নিয়ে যাবে। ইচ্ছার বিরুদ্ধে বাবা-মাও জোর করে আমাদের ক্যাম্পাস থেকে তুলে নিতে পারেন না। অথচ তার সাবেক স্বামী কীভাবে ক্যাম্পাস থেকে তুলে নিয়ে যায়! অপহরণের আট ঘণ্টা পেরিয়ে গেছে কিন্তু এখনও প্রশাসন তার সন্ধান জানাতে পারেনি। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আবদুস সোবহান বাসভবন থেকে বেরিয়ে এসে তিনি শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে তাদের আন্দোলন স্থগিত করতে বলেন। উপাচার্য শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, এটা তাদের স্বামী-স্ত্রীর ব্যাপার। স্বামী তার স্ত্রীকে নিয়ে গেছে। অন্যায় হলে সেটা আইন দেখবে। এখানে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই। উপাচার্য ওই ছাত্রীকে দ্রুত সময়ের মধ্যে খুঁজে বের করার আশ্বাস দিলেও শিক্ষার্থীরা আন্দোলন অব্যাহত রাখেন। পরে উপাচার্য ব্যর্থ হয়ে তার বাসভবনে ফিরে যান। ছাত্রীর বাবা উপাচার্যের সাথে কথা বলার জন্য তার বাসভবনে প্রবেশ করেন। উপাচার্যের সাথে প্রায় আধঘন্টা কথা বলে বেরিয়ে এসে প্রশাসনের পদক্ষেপের প্রতি সন্তুষ্টি প্রকাশ করে শিক্ষার্থীদের বলেন, আমি এখনো আমার মেয়ের কোন সন্ধান পাইনি। জানি না আমার মেয়েকে কে উঠিয়ে নিয়ে গেছে। তবে তার স্বামী আমার মেয়েকে ‘উঠিয়ে নিয়ে যাবে’ বিভিন্ন সময় হুমকি দিয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমার মেয়েকে উদ্ধারে সর্বাত্মক চেষ্টা করছে। আমি প্রশাসনের কাছে দাবি থাকবে আমার মেয়েকে যেন দ্রুত ফিরিয়ে দেয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বলেন, বিষয়টি জানার সঙ্গে সঙ্গে আমি প্রশাসনকে জানিয়েছি। তারা খোঁজ খবর নিয়ে দেখছে। বিষয়টি ইতিমধ্যে ওই ছাত্রীর এলাকার পুলিশকেও জানানো হয়েছে।’ওই ছাত্রীকে খুঁজে বের করতে আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করছি। মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের জানিয়েছেন তারা স্বামী-স্ত্রী। তার স্বামীই নাকি নিয়ে গেছে। প্রাথমিকভাবে আমাদের বলা হয়েছে তাদের খোঁজাখুঁজি করতে। আমরা সব জায়গায় খবর দিয়েছি। তাদের খুঁজে বের করতে আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করছি। বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা আজকের মতো ঘেরাও কর্মসূচি স্থগিত করেছে। যদি ওই শিক্ষার্থীর সন্ধান পাওয়া না যায় তবে শনিবার সকাল ১০টায় আবারও উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করে বিক্ষোভ সমাবেশ করবে।


Share this post in your social media

© VarsityNews24.Com
Developed by TipuIT.Com