মঙ্গলবার, ১৫ Jun ২০২১, ১১:৪৫ অপরাহ্ন

উন্নয়নশীল দেশের যোগ্যতা অর্জনে রাবিতে আনন্দ শোভাযাত্রা

উন্নয়নশীল দেশের যোগ্যতা অর্জনে রাবিতে আনন্দ শোভাযাত্রা

রাবি প্রতিনিধি : বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের যোগ্যতা অর্জন করায় ২২ মার্চ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এক আনন্দ শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এদিন সকাল ১০:৩০ মিনিটে সিনেট ভবন থেকে শোভাযাত্রাটি শুরু হয়ে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ছাড়াও বিভাগ, আবাসিক হল ও ইনস্টিটিউট সমূহের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের ব্যানার ও প্লাকার্ডসহ শোভাযাত্রায় অংশ নেয়। শোভাযাত্রার শুরুতে উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান তাঁর সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় বলেন, আজ গোটা জাতি গর্বিত যে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের স্বীকৃতি পেয়েছে। ১৭ মার্চ জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি (সিডিপি) এই স্বীকৃতিপত্র জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধির কাছে হস্তান্তর করেছে। বর্তমান সরকার জাতীয় উন্নয়নের যে চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছিলো সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার এই সাফল্য আমাদের সবার জন্য অত্যন্ত আনন্দের বিষয়। আমাদের অনেক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও এই অর্জন এক অনন্য নজির। উন্নয়নশীল দেশের কাতারে শামিল হতে হলে যেকোনো দেশকে মাথাপিছু আয়, মানবসম্পদ ও অর্থনৈতিক ঝুকি মোকাবেলায় সক্ষমতার নির্দিষ্ট মানদন্ডে পৌঁছাতে হয়। বাংলাদেশ এর সবকটি সূচকেই উত্তীর্ণ হয়েছে। তিনি বলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও গণতন্ত্রের মানসকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সঠিক গতিশীল নেতৃত্বেই এই অর্জন সম্ভব হয়েছে। তারই সঠিক দিক নির্দেশনার ফলেই আমরা স্থিতিশীল উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) ও সহশ্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এমডিজি) এই দুটি ক্ষেত্রেই নির্ধারিত সময়ের আগেই লক্ষ্যে পৌঁছাতে পেরেছি। যা সামগ্রিকভাবে আমাদের স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে পৌঁছে দিয়েছে। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে জাতি তার কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবে এবং বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বাস্তবায়ন সম্ভব হবে বলেও উপাচার্য আশাবাদ ব্যক্ত করেন। শোভাযাত্রা শেষে সিনেট ভবন চত্বরে উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা করেন। শোভাযাত্রায় অন্যান্যের মধ্যে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর মো. রোস্তম আলী, কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান আল-আরিফ, রেজিস্ট্রার প্রফেসর এম এ বারী, ছাত্র-উপদেষ্টা প্রফেসর জান্নাতুল ফেরদৌস, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক প্রফেসর প্রভাষ কুমার কর্মকার, প্রক্টর প্রফেসর মো. লুৎফর রহমানসহ বিশিষ্ট শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন।


Share this post in your social media

© VarsityNews24.Com
Developed by TipuIT.Com