বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ১১:৪৯ পূর্বাহ্ন

নারী নির্যাতন এবং কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানি শীর্ষক সেমিনারে

নারী নির্যাতন এবং কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানি শীর্ষক সেমিনারে

বিইউবিটি প্রতিনিধি : বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এন্ড টেকনোলজির আইন ও বিচার বিভাগ আয়োজিত ‘নারী নির্যাতন এবং কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানি: একটি আইনগত ও আর্থ-সামাজিক বিশ্লেষণ’ শীর্ষক সেমিনার ১১ এপ্রিল রূপনগর মিরপুর-২ ঢাকাস্থ স্থায়ী ক্যাম্পাসের হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ডিজিটাল মাধ্যমে যৌন হয়রানি অনেকাংশে বেড়েছে এবং এসব যৌন হয়রানি প্রতিরোধে সর্বস্তরের মানুষের মাঝে সচেতনতা বাড়ানোর কোন বিকল্প নেই বলে মত দিয়েছেন বিশ্লেষক ও সমাজের বিভিন্ন স্তারের মানুষ। বক্তারা আরো বলেন, কর্মক্ষেত্রে নারীরা আগের চেয়ে বেশি যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছে। তারা বিভিন্নভাবে যৌন নিপীড়নের শিকার হয়। পাশাপাশি পুরুষরাও যৌন হয়ারিনর শিকার হয়। তবে, নারীর প্রতি যৌন হয়রানির বিষয়টি যত বেশি আলোচিত হয় ততটা পুরুষের ক্ষেত্রে হয় না। প্রধান বক্তা হিসেবে সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন জনাব রকিবুল হক মিয়া, আইনি পরামর্শক, বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রান্সপোর্ট এসোসিয়েশন (আইএটিএ), কানাডা। তিনি বলেন, সমাজ বিনির্মাণে ও বাংলাদেশের অর্থনীতির গতি পরিবর্তনে নারীর অবদান অনেক বেশি কিন্তু তারা কর্মক্ষেত্রে ‘বস’দের দ্বারা বা সহকর্মীদের দ্বারা যৌন হয়রানির শিকার হয়। তার মতে, নিরাপত্তা দেওয়া না হলে নারীরা হয়ত আর ঘর থেকে বের হতে চাইবে না। আর সেটি হলে দেশের অর্থনীতি ক্ষতির মুখে পড়বে। তিনি বলেন, আমাদের দেশের কর্মক্ষেত্রগুলো অবশ্যই নিরাপদ রাখতে হবে। এর স্বার্থে প্রতিটি স্থানে সিসিটিভি বসাতে হবে। তিনি নারীদের পরামর্শ দেন যে, রাস্তাঘাটে নারীরা যদি যৌন হয়রানির শিকার হন, তারা যেন তৎক্ষনাৎ পুলিশের সহায়তা চান।

নারী অধিকার সংগঠন ‘নারীপক্ষের’ প্রকল্প পরিচালক জনাবা রওশন আরা বিশেষ অতিথি হিসেবে সেমিনারে উপস্থিত থেকে বলেন, বর্তমানে ইন্টারনেটে নারীরা যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছে। তিনি ব্যাখ্যা দেন যে, শুধু গায়ে হাত দিলেই নারীর প্রতি সহিংসতা ও যৌন হয়রানি বা নিপীড়ন হয় না বরং সহিংসতা ও নিপিড়নের নতুন রূপ এখন ডিজিটাল মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। পর্নগ্রাফির মাধ্যমেও যৌন নির্যাতন চলছে। এ থেকে বেরিয়ে আসতে অত্যন্ত সচেতনভাবে ডিজিটাল ডিভাইসগুলো এবং ইন্টচারনেটের সুবিধা ব্যবহার করতে হবে। এছাড়া সেমিনারে কথা বলেন, জনাবা সেলিনা আহমেদ, নির্বাহী পরিচালক, এসিড সারভাইভরস এসোসিয়েশন; প্রফেসর মিঞা লুৎফার রহমান, প্রক্টর, বিইউবিটি। সেমিনারের সভাপতিত্ব করেন, ড. সৈয়দ সরফরাজ হামিদ, ডিন, ফ্যাকাল্টি অব ল’, বিইউবিটি। উপস্থিত ছিলেন, জনাবা ফালগুনি মোজাম্মেল, সহকারি অধ্যাপক, ডিপার্টমেন্ট অব ল’ এন্ড জাস্টিস, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভাগীয় চেয়ারম্যান ও শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং কর্মকর্তাবৃন্দ।


নিউজটি অন্যকে শেয়ার করুন...

আর্কাইভ

business add here
© VarsityNews24.Com
Developed by TipuIT.Com